কুস্তি লড়াই দেখে আমার মধ্যে যৌন তাড়না সৃষ্টি হয়

কুস্তি লড়াই দেখে আমার মধ্যে যৌন তাড়না সৃষ্টি হয়

আমি দীর্ঘদিন যাবত একটা মানসিক সমস্যায় ভুগছি, প্রায় এক বছরের উপরে হবে। আমি অনেক চেষ্টা করছি কিন্তু কিছুতেই এই মানসিক সমস্যা থেকে বের হতে পারছি না। আমার সমস্যা হল প্রায় দেড় বছর আগে আমি ইন্ডিয়ার কলকাতায় বেড়াতে যাই। তখন ওইখানে প্রথম আমি ইন্ডিয়ান মল্লযুদ্ধ তথা কুস্তি খেলা দেখি, তার আগে আমি কখনোই ইন্ডিয়ান কুস্তি খেলা দেখিনি বা এ সম্পর্কে আমার কোন আইডিয়া ছিল না। ওখানে আমি দেখি খোলা মাঠের মধ্যে একটু উঁচু করে সুন্দর ভাবে মাটির মঞ্চ বানানো হয়েছে এবং এই মঞ্চের উপরে কুস্তি খেলা হচ্ছে। চারপাশে অনেক নারী পুরুষ কুস্তি লড়াই দেখছে। প্রথম দেখাতেই এই কুস্তি খেলার প্রতি আমার এক ধরনের আসক্তি এসে যায় এবং এটা আমার খুব ভাল লাগে। আমি দেখতে পাই দুজন পালোয়ান বা কুস্তিগীর প্রায় সম্পূর্ণ নগ্ন অবস্থায় কুস্তি করছে, তাদের পরনে শুধুমাত্র জাঙ্গিয়া বা আন্ডারওয়্যার। এটাই নাকি কুস্তি খেলার নিয়ম, কেউ কুস্তি লড়াই এ অংশ নিতে চাইলে তাদেরকে উদোম হয়ে খেলায় অংশ নিতে হবে, পরনে কোন কাপড় থাকতে পারবে না, শুধু আন্ডারওয়্যার বা জাঙ্গিয়া পড়ে কুস্তি লড়তে হবে। 

আমি দেখতে পাই দুজন কুস্তিগীর কুস্তি লড়াই করছে, একজন আরেকজনকে বিভিন্ন ভাবে জাপটে ধরে মাটিতে ফেলে দিচ্ছে। আমি দেখি মাটিতে ফেলে দেয়ার আগে বিভিন্ন ভাবে একজন আরেক জনের জাঙ্গিয়া খামচে টান দিয়ে ধরে বা জাঙ্গিয়া টেনে ধরে রাখে। অনেক সময় একজন আরেক জনকে বিভিন্ন ভাবে মাটিতে ফেলে ধরে রাখে এবং বিভিন্ন ভাবে জাঙ্গিয়া খামচে টান দিয়ে ধরে রাখে, মনে হয় যেন পশ্চাৎদেশে  খামচে ধরে রাখছে। এভাবে জাঙ্গিয়া খামচে টেনে ধরার কারণে শরীর প্রায় উন্মুক্ত হয়ে যায়। এটাই নাকি কুস্তি খেলার নিয়ম। এই কুস্তি লড়াই দেখে আমার মধ্যে যৌন উত্তেজনা বা যৌন তাড়নার সৃষ্টি হয় এবং আমি মাস্টারবেট করি। তারপর থেকেই আমি এই কুস্তি খেলার প্রতি তীব্রভাবে আসক্ত হয়ে পড়ি। আমি দেশে আসার পর বাসায় বসে ইউটিউবে এই কুস্তি খেলার ভিডিও দেখতে থাকি প্রচুর পরিমাণে এবং মাঝে মাঝেই মাস্টারবেট করে থাকি। আমার প্রায়ই মনে হয় আমি যদি এভাবে কারও সাথে কুস্তি লড়াই করতে পারতাম তাহলে খুব ভাল লাগতো। অবশ্য আমি নিজেও প্রথম বার ওই সময় যখন কলকাতায় যাই (দেড় বছর আগে) তখন এক আখড়াতে (যেখানে কুস্তি খেলার প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়) যাই এবং এভাবে জাঙ্গিয়া পড়ে কুস্তি লড়াই এ অংশ নেই। 

এরপরে আমি বেশ কয়েকবারই কলকাতায় যাই এবং প্রতিবারই আখড়াতে কুস্তি লড়াই এ অংশ নেই। এটা এখন আমার কাছে একটা নেশার বিষয়ে পরিণত হয়েছে। কেন জানি আমার খুব মন চায় আমি এভাবে জাঙ্গিয়া পড়ে কুস্তি লড়াই করি এবং আরেক জনের শরীরে খামচে ধরি। কুস্তি লড়াইয়ের মধ্যে আরেক জনের কাপড় টেনে ধরে তাকে একেবারে অর্ধনগ্ন করে দিতে আমার খুব মজা লাগে। এজন্য আমি বেশ কয়েকবারই কলকাতায় যাই এবং সেখানে আখড়াতে কুস্তি লড়াই এ অংশ নেই। কারণ বাংলাদেশের মত রক্ষণশীল দেশে এই ধরনের কুস্তি খেলা হওয়া সম্ভব না।। সামনে ডিসেম্বরে আবার কলকাতায় যাওয়ার প্ল্যান আছে তখন ওইখানে প্রতিযোগিতা হবে, আমার অংশ নেয়ার কথা রয়েছে। আমি এজন্য অনেক আগে থেকে প্রস্তুতি নেয়া শুরু করেছি। দেশে আমার এক কাজিনকে নিয়ে গিয়েছিলাম, সেও এটার ভক্ত হয়ে গেছে। আমি দেশে তার সাথে মাঝে মাঝেই কুস্তি খেলে থাকি। আমি জানতে চাই আমার এই আসক্তি কি আসলেই কোন মানসিক সমস্যা নাকি এটা নরমাল বিহেভিয়ার? কুস্তি খেলার প্রতি আমার এই তীব্র আসক্তি কি আসলেই কোন সমস্যা?

আমাদের পরামর্শ

আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ মনোযোগী মন-এ আপনার প্রশ্নটি তুলে ধরার জন্য। প্রথমত বলতে চাই যে, আপনার লেখার শেষভাগে যে প্রশ্নটি আপনি করেছেন তার উত্তর কিন্তু প্রথম অংশে আপনিই দিয়েছেন। একটু বিস্তারিত যদি বলি, আপনি জানতে চেয়েছেন যে, কুস্তি খেলার প্রতি আসক্তি কি কোনো মানসিক সমস্যা নাকি স্বাভাবিক আচরণ? আর প্রথমেই আপনি বলেছেন যে, আপনি প্রায় দেড় বছর থেকে মানসিক সমস্যায় ভুগছেন এবং অনেক চেষ্টা করেও বের হতে পারছেন না। এ থেকে বলা যায় যে, এই আসক্তি যে আপনার দৈনন্দিন জীবনে সমস্যা তৈরি করছে এবং জীবনযাত্রাকে ব্যাহত করছে তা সম্পর্কে আপনি অবগত। বর্তমানে আপনি আপনার দৈনন্দিন জীবনের স্বাভাবিক ছন্দ ফিরে পেতে চাচ্ছেন। কারণ হিসেবে বলা যায়, যেকোনো ধরনের আসক্তির ফলেই কিন্তু আমাদের জীবনের স্বাভাবিক কার্যকলাপের ছন্দপতন ঘটে। এক্ষেত্রে আমাদের জানতে হবে যে, কোন আচরণকে আমরা স্বাভাবিক আগ্রহ বলব আর কোনটিকে আসক্তি বলব। তাছাড়া আপনার বর্ণনা থেকে দেখা যাচ্ছে যে, কুস্তি খেলা দেখার সময় আপনি যৌন উত্তেজনা বোধ করছেন। এখন শুধু কুস্তি খেলা দেখা নয় তাতে অংশগ্রহণের মাধ্যমেও আপনি আপনার মনের কিছু চাহিদা পূরণ করছেন। যেমন, কুস্তি পার্টনারের শরীরের কিছু অংশে স্পর্শের মাধ্যমে আপনার ভেতর ভালোলাগা তৈরি হচ্ছে। মূলত আপনার ভেতরের যৌন চাহিদাটি কিছু অংশে তৃপ্ত হচ্ছে হয়তবা।

এখান থেকে আরও কিছু বিষয় উঠে আসছে বা কিছু প্রশ্নের অবতারণা হচ্ছে। যেমন, আপনি কুস্তি দেখছেন বা খেলছেন সমলিঙ্গের মানুষের সাথে এবং ফলশ্রুতিতে আপনি যৌন উত্তেজনা বোধ করছেন। বিপরীত লিঙ্গের প্রতিও কি আপনার একই ধরনের বোধ কাজ করেছে কখনও? এছাড়া শুধু কুস্তি খেলা নয় অন্যকোনো প্রেক্ষিতেও কখনও সম বা বিপরীত লিঙ্গের প্রতি যৌন আগ্রহ প্রকাশ পেয়েছে কি? তাছাড়া আপনার কোন রোমান্টিক পার্টনার আছে কিনা ইত্যাদি প্রশ্নগুলোর উত্তর জানতে হবে।  

আপনি উল্লেখ করেছেন আপনি এই ধরনের কুস্তি খেলায় লিপ্ত হওয়ার জন্য প্রায়ই ছুটে যাচ্ছেন কলকাতায় কারণ আপনার মতে আমাদের সমাজ হচ্ছে রক্ষণশীল। এক্ষেত্রে এমন কিছু কী আপনার অবচেতন মনে কাজ করছে যে, সমলিঙ্গের প্রতি আকর্ষণ আমাদের দেশের সামাজিক প্রেক্ষাপটে খোলামেলাভাবে প্রকাশ করা যাচ্ছে না বিধায় সেটা একটি খেলার মাধ্যমে তৃপ্ত করা যেটি নিয়ে আমাদের সমাজ প্রত্যক্ষ কোন উক্তি/কমেন্ট করবে না। এ প্রেক্ষাপটে আপনি আপনার এক কাজিনের সাথেও এই খেলা খেলছেন।  বোধ করি সেও সমলিঙ্গ হবে অর্থাৎ একজন পুরুষ। প্রশ্ন হচ্ছে যখন তার সাথে খেলছেন, আপনি কি একই যৌন উত্তেজনা বোধ করছেন? আরও কিছু প্রশ্নের উত্তর জানা প্রয়োজন ছিল, আপনার জীবনযাত্রা এবং পরিবারের বিষয়ে, চাকরিক্ষেত্র বা পড়াশোনার বিষয়ে।

যেহেতু আপনি বুঝতে পেরেছেন যে, আপনি একটি আসক্তিতে ডুবে আছেন যা হতে পারে আপনার সমস্যার প্রকাশ বা অভিব্যক্তি মাত্র, এর পেছনের কারণগুলো আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে যার কিছুটা উপরে বর্ণনা করার চেষ্টা করেছি। এর জন্য আপনাকে অতিসত্বর একজন মানসিক স্বাস্থ্য পেশাজীবীর শরণাপন্ন হতে বলব, যে কিনা আপনাকে সাহায্য করবে আপনার সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে আপনার প্রশ্নের উত্তরগুলো খুঁজে পাওয়ার ক্ষেত্রে।

শুভকামনা। 

ইরফানা সামিয়া
+ posts

আমি একজন শিক্ষা মনোবিজ্ঞানী এবং কাউন্সেলর। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মনোবিজ্ঞান-এ স্নাতক, পেশাগত শিক্ষা মনোবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর এবং এম ফিল সম্পন্ন করেছি। তাছাড়া ভারত থেকে কাউন্সেলিং বিষয়ে ডিপ্লোমা করেছি। দীর্ঘ ১১ বছর  কাউন্সেলিং পেশার সাথে যুক্ত আছি। বর্তমানে একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে সিনিয়র কাউন্সেলর হিসাবে কাজ করছি।

Post Author: ইরফানা সামিয়া

আমি একজন শিক্ষা মনোবিজ্ঞানী এবং কাউন্সেলর। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মনোবিজ্ঞান-এ স্নাতক, পেশাগত শিক্ষা মনোবিজ্ঞানে স্নাতকোত্তর এবং এম ফিল সম্পন্ন করেছি। তাছাড়া ভারত থেকে কাউন্সেলিং বিষয়ে ডিপ্লোমা করেছি। দীর্ঘ ১১ বছর  কাউন্সেলিং পেশার সাথে যুক্ত আছি। বর্তমানে একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুলে সিনিয়র কাউন্সেলর হিসাবে কাজ করছি।

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।